দুক ফাঙ – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর


আয় দুক, আয় তুই,
তত্য়েই পাদি থোয়োঙ পাদি,
পরানর পত্তি নারি তানি তানি সিনি
থাচ মারেচ পত্তি সিনি জেয়ে নারি চুঝি
ফুদো ফুদো লো তুই চুঝিচ পরান ভরি
মা সান পালেম তরে তজিম আল্য়েঙে গরিহ।
পরান আয় তুই আয় ঝাদি।

সুনজুগে জেবেঘি ঘুম মর মনর ওজোলেঙত,
তর আদরে আদরে-
হিঝু নারি পরানর, হিঝু চিদোর জেবাক সিনি
জাদোক সিনি।
মা সান পোচপানায় তরে থোম লঘে লঘে
বুঘোত বেরে’ই থোম দিয়েন গিরগিচ্য়ে সনমোচ্য়ে আহদে,
আদর গরিহ ধাকঘাজি বঝি
এগামনে দাগি দিম ওলি,
দিভে চোক তর লারেহ এভাক বদি।
গভিন পরানর মর ফোবেয়ে বনিজেচ্ছান
সিদি জেব ত হবালত বিজোনর বোয়েরর সান
ঘুমোন গরিভো তর গভিনত্থুন গভিন।

আয় দুক, আয় তুই, আহওজে ফাঙ গরঙর তরেহ।
বুঘোত মর ঝামদি পর মুওন মর চাবি দি-আহদে।
গদা বুক জুরি উত হিজেক সারিহ
মা-সারা গুরো সান উত হানি হানি।
পরানর থুমোনোর হুরে
ভাঙা ধুদুক ইক্কো আঘে
দি-আহদে বারিদে সিবে
হিয়েত জা’ বল আঘে।
পাগলর সান বাজা
ধুকরু নাধুক ধেকরে ধুক
পাগল ধুদুক বাজা
ভাঙিলে ভাঙোক বুক।
হিজেগে হিজেগরে দিবো বারি
বাচ্য়েবারি উদিভো হিজেক সারিহ
এক সুরে এক সমারে উদিভাক হানি
থরি নপাচ্য়ে সুলোনায়-
আয় দুক, আয় তুই আয়।

ভারি গায়গায় এ মনান।
আর হিচ্ছু নয়,
হায় আয় একবার, রিনি চা’ মুওন মর,
চোক্খুন দে একবার চোঘোত মর,
একরিনি চে’ই থাক হাক্কন এবার।
আর হিচ্ছু নয়,
এ মনান গায়গায়
বানাহ একজন সমার তোগায়।
আয় দুক, তুই হা’য় আয়।
হধা নহবে জনি বঝি থেবে নিরিবিলি
পরানর হুরে দিন-রেইত।
লুলোঙ গরিভার চেলেহ ম মনানর হা’য় জেবে
মনানে তোগায় লুলোঙর সাঙেত।

আয় দুক পরানর ধনান,
তত্য়েই পাদি থোই দুওঙ ফুলোর বিচ্য়নান,
পরানর বধুর থুমোত
জা’ লো এভসঙ আঘে বাজিনেই
সিয়েনিই পারিবে তুই হেই নিগিরেই।

দুঃখ-আবাহন/সন্ধ্যাসংগীত

Photo credit: https://unsplash.com/@coopery

পরানর গিদোর সুর – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর


সিয়েন হন সুরে গিত গা’চ, পরানান মর ?
বারিঝে নেই, হরান্য়ে নেই, নেই জারহাল,
দিন নেই, রেইত নেই – অজিরেন, অসামাল
সিয়েন হন সুরে গিত গা’চ, পরানান মর ?

গায় গায় গভিন তারুমো সেরে
বজিনেই নিজো মনে মনে
মাদি হিত্য়ে রিনি চে’ই,
এগই গিত গে’ই গে’ই-
দিন জায়. রেইত জায়, বারিঝে-হরান্য়ে জায়,
তুও গিত নফুরায় ?
মাধাত পরের পাদা, পরের সুগুনো ফুল,
পরের সিরো পানিহ, পরের বেলর সদক,
পরের বারিঝের পানিহ উরউরেই হধক,
হরলাহ মাধা উগুরে দগরি দগরি উধে
বোয়েরত সুগুনো পাদা হররত হরত –
বঝি বঝি সিধু, চামাত্তুও হাজর পরান
গে’ই জার এগামনে, এগই গিত এগই গান।

নলাগের গম আর, এগই গিত এগই গান।
হমলে থামিবে তুই, হ মরে হ তুই পরান !
এলুঙ ঘুমোত গায় গায়-
আবাধা সবন জায় ভাঙি
আবাধা ঘুমোত্তুন উধি
আবাধা সুনিলুঙ সিয়েন হি
পরানর এক হোনাত
সে রভুও সাজি উধের
সে গিত্য়ো নাজি উধের-
হনজনে নসুনোন জেক্কে
চেরোপালাহ অলর জেক্কে
সেই র সেই গিত অনসুর অজিরেন
সনমোচ্য়ে আন্ধারর রুমে রুমে থান সিদে জে’ন।

দিনোর হামত এগামন, চেরোপালাহ লুক-জন,
চেরোপালাহ জা-জা থাম-থাম।
আবাধা পাদিলে হান, ভাজি এঝে সেই গান,
অগুন্তি জনর সেই আবাজর আলাম
তারই পরানর সেরে বানাহ ইক্কো র’ উরে-
এগই সুরে এগই ঘজায়, নেইথুম নেইধুজি-
বে’ক হিঝু এহবাদি, সিয়েনই সুনোঙ বঝি বঝি।

ঘুম জাঙ, জাগি থাঙ, মনর সাঙুদোর চুগি
মুহালা গরিহ হন্নাজানি থায় অনসুর বঝি-
হমলে হমলেত্থুন ধরি,
তারই নিজেঝর র’ জ্য়ে’ন এঝের সাজুরি।
এ পরানর ভাঙা ভিদেত অলর দিবুচ্য়েত
হ’ ইক্কো হুরিহ জায় এক সুরে গায়গায়,
হিজেনি হিত্য়েই তে গিত গা’য়।
চিতপুরি তা রভুও সুনি অলরান হানি হানি
হাবায় আহবিলেজর  বাচ্য়েবারি।

মনান মর, আর হিচ্ছু নসিগিলে তুই,
বানাহ ইক্কোই গিত !
এ দুনিয়ের সয়সাগর সুরো মায়
বানাহ ইক্কোই গত !

সালে ওহইয়ে, ওহইয়ে ও ম পরান,
নপারঙর সুনি আর এগই গিত, এগই গান।

হৃদয়ের গীতিধ্বনি/সন্ধ্যাসংগীত

Photo credit: https://unsplash.com/@cbarbalis

সুঘোর আহবিলেচ– রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর


নজিন্যে চোঘোপাদায় রিনি
সুঘে হ’য় বনিজেচ ইরি,
“জুনোহ প’র এমন মিধে,
বাঝির র দুরোর সাজুরে,
আহজি আহজি চোঘোত রেদোর
নরম বরগি গভিন ঘুমোর।
হুঝি ঝিমিলানি প’ন পানিহত গাঙর
নরম হুঝি পাদা নাজে ঝুবুর গাঝর,
লুদিত ফুদি দিভে ফুলে রিনি চা’ন লাজুরি চোঘে
পাদার সেরে লুগেলাক মু হিজেনি হি লাজে,
বোয়েরে দুরোর তারুমোর
লারেই গাঝর সাবা আল্যেঙর
গঙদা হুহলি হুহলি দি জায়
লাজাঙ লাজাঙ ফুলোর।
এমন ইক্কো দোল রেদোত
গায় গায় আঘঙ বঝি,
রেদোর পোচপানাহত্থুন
জুনোহ প’র পরে ঝরি ঝরি।”

মনর বিচ্চোনত পরি গায় গায়
সুক্কানে বানাহ এগই গিত গা’য়,
“গায় গায় মুই বানাহ
হনহ জন নেই ম হায়।”
মুই তারে জেনেই গরহঙ পুঝোর,
“হিয়া, সুক হারে তর আঝা ?”
সুক্কানে হানি চুবে চুবে হ’য়,
“পোচপানাহ, পোচপানাহ,
বে’ক আঘে বে’ক দোল
নেই বানাহ পোচপানাহ।
ফুলুন ফুত্তোন গাঝে গাঝে,
উত্য়োন তারা ঝাগে ঝাগে।
বে’ক আঘে, বে’ক ইধু আঘে-
বানাহ তে নেই, বানাহ নেই তে,
পোচপানাহগান বানাহ নেই।”
নজিন্যে চোঘোপাদায় রিনি
সুঘে হ’য় বনিজেচ ইরি,
“এই সরার পারত, এই রুবো জুনোহ পরহত,
এই ফুলোর তারুমোত, এই পিবির পিবির বোয়েরত,
হনজন নেই মর নিজোর সদর,
সেনে পরানানে চা’য় হানিবার।
সেনে পরানানে চা’য় চুবে চুবে-
মিঝি জেবার এ রেত্যোর লঘে।
নথেব হিচ্ছু প’র অহলে রেত্যো,
থেব বানাহ সিরো পানিহ ফুদোফুদো।
পরানে হয় মেক্কানো সান
হানি হানি জাঙ মরি
চোঘোপানিত জাঙ বদলি।”

সুঘে হ’য়, “এই সুঘোর জনম সারি,
ধাপ জায় দুঘোর জনম লোভার হারি।”
“হিয়া সুক, হেনে সেজান বেধক ধাপ তর ?”
“নেই মর হনহ জন, নেই মর হন সদর।”
“সুক, হারে তুই চা’চ ?
সুক, হারে তুই বাচ্ছাচ ?”
সুক্কানে হানি হানি হ’য় বানাহ,
“পোচপানাহ, পোচপানাহ।”

সুখের বিলাপ/সন্ধ্যাসংগীত

Photo credit: https://unsplash.com/@alexis_antonio

সারিজেয়ে – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

গেলাহক সারি, আর হিচ্ছু নেই হোভার।
গেলাহক সারি, আর হিচ্ছু নেই গেভার।
বানাহ গে’ই গে’ই জার বানাহ হানি হানি জার
ভাঙা-জাঙা মনান মর, বানাহ হ’র বার বার,
“সারি গেলাহক ভেক্কুনে ফেলেই গেলাহক মরেহ,
বুক মর ভাঙি গেলহ, গভা গভা সেলে।”

বিঝু বিদি গেলেহ হরান্যেই হানি হানি হ’য়
“ফুলুন গেলাহক, পেইক্খুন গেলাহক-
সারি গেলাহক ভেক্কুনে ফেলেই গেলাহক মরেহ।”
দিন ফুরেই গেলেহ রেদে অলর অহয়,
হানি হানি বানাহ তে হ’য়,
“দিন গেলহ, বেল গেলহ, সদক্কানো গেলহ মিলেই-
বানাহ গায় গায় মুই, বেঘে গেলাহক মরেহ ফেলেই।”

জ্য়েন থুত্য়ে বোয়ের হানে মরা বাঝত হেনেই আভর
উধের সারাল্য়ে র মর মনর তারুমোত আহবিলেজর,
“সারি গেলাহক, ফেলেই গেলাহক,
এগে এগে বেঘে সুদোনাল সিনিলাক।”

মেলা সেজে জ্য়েন
ভাঙা-তেনজঙ মেজাঙ
পরি থায় ইন্ধি-উন্ধি-
হাজর-বিজোর তোলোয়ানিহ
বেরান বেঘে উহরি-মারি-
হনজনে নহচান তারারে ফিরি,
বেঘে গঙি জান জে জার পত ধরি।

পুরোন হাজর ফাদা হাবরর সান
মরেহ ফেলেই গেলাহক,
হধক চে’ই রোলুঙ পানিহ চেরাঙ চেরাঙ চোঘে-
সমার মরেহ হনজনে নহনোজোলাক।

সেনে পরানানে বানাহ গা’য়, বানাহ হানে, বানাহ হ’য়,
“মরেহ ফেলেই গেলাহক,
বেঘে মরেহ ফেলেই গেলাহক
ভেক্কুনে ফেলেই গেলাহক।”

তারাহহি একবার চেয়োন নাহি ফিরি ?
পারাহপাঙ চেয়োন।
ভুলেহি একবার তারার পোচ্ছেগি চোঘোপানিহ ?
পারাহপাঙ পোচ্ছেগি।
একবার ভাপ্পোন পারাহপাঙ-
নেজেই লঘে- বান্নোই হানিবো গায় গায়।
সিয়েনোই ভাপ্পোন্নে পারাহপাঙ।
সেনে চেয়োন ফিরি।
সে জেরে ? সে জেরে !
সেনেই তারাহ আহচ্চোন জ্য়েন।
একফুদো চোঘোপানিহ সুগেল ঝিমিদোত।
সে জেরে ? সে জেরে !
গেলাহক ফেলেই।
সে জেরে ? সে জেরে !
ফুল গেলহ, পেইক গেলহ, বেল গেলহ, সদক গেলহ,
বে’ক গেলহ, ভেক্কানি গেলহ-
মনান বনিজেচ সারি হোই উধে,
“ভেক্কুনে গেলাহক ফেলেই,
মরেই গেলাহক ফেলেই।”

পরিত্যক্ত/সন্ধ্যাসংগীত

Photo credit: https://unsplash.com/@manueljota

আঝার নিরাঝা – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর


ওরে আঝা, হিত্যেই তর উত্যে-তেঙেরা সান!
নিরাঝারই সান জেন
মুহালা হিত্যেই-
জ্যেন লুগেই লুগেই
জ্যেন চিদেই চিদেই
জ্যেন দরেই দরেই সমল্লি তুই পরান ঘরত।
এভে না ফিরি জেবে ভাবি উদো নপাচ,
আঝা, আঝা তুই হেত্তেই হারে দরাচ।
এলে এচ্চে দিবাত্যে জে সুক আ বিচ্ছেচ.
নিজেই সিয়েন তুই নহগরর বিচ্ছেচ,
সেনে তুই সেজান লারে লারে,
সেনে পরের বুঘোত্তুন লারে দুঘোর নিঝেচ।
মনর হুরে লুজুরুক গরিহ বঝি
চেরাং চেরাং চোঘোপানিহ-
“এঝান দিন জেব বিদি
এচ্চে জেব বিদি, হেল্লে লুহঙিবোগি
দুক জেব বিদি, সুক এভ ফিরি।”
হিয়া আঝা, হেত্যেই মরে মিঝে মন বুঝেই দেনা।
মুই হি দরাঙ দুঘোরে-মনদুঘোরে,
মুই হি নহচিনোঙ তারারে।
তারাহ হি বেঘে নয় মর সদর।
সালে, আঝা হি তর দর মনর।
সালে বঝি মর হুরে অজিরেন চুবেচুবে
হেনে দুওর আঝা, দুওর বিচ্ছেচ মিঝে।

সুনো মরে আঝা, মর চবাসালত বঝি
“আর হদ দুক, পেভে আজাগরিহ,
মনর জে হত্থাঘান পুরিনেই ওহইয়ে আঙুরি
জিয়েনর নএল সেপ পুরিবের নুও গরিহ
সিয়েনো পেভ নুও পরান পুরিবেত্যেই আরেকবার ফিরি।”

ন দরেচ পরান
দুক-দরত বেঘে হি
মর নিজোর হত্থা নয় ?
সালে হেত্যেই মুহালা ?
হেত্যেই উত্যে-তেঙেরা ?
সালে হেত্যেই এহদক দোরেই দোরেই
সমল্লি মর মনর ঘরত ?

আশার নৈরাশ্য/সন্ধ্যাসংগীত

Photo credit: https://unsplash.com/@ripato

তারার নাতদেনা – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

পোতপোত্যে পরত্থুন আন্ধার সাগরত
ঝামদি পরিলো ইক্কো তারা,
জ্যেন পাগলর সান।
সয়সাগর তারা জলি চেরোহপালা
রলাক আমক চে’ই-
সদগর ফুদো জিভে এলহ তারা লঘে
থেবদত গেলহ মিলেই।
সে সাগরত
মনদুঘে নাতদিলো
জনমত্যেই লুকদিলো
সদেসত মরা তারা
জুওত আঘন সরল।

হেত্যেই, হি তার মনদুক ?
হারত্তুন হন পুঝোর নহএল নিহগিলি-
হেত্তেই তে ফেলেই গেলহ এ পিত্তিমিহ।
জনি গত্তাক পুঝোর তারে
জানঙ তে হি হধ তারারে।
জেধক দিন তে এল বাজি
জানঙ তে হেত্তেই জেয়ে জলি।
সিয়েন বানাহ আহজি পেভারই দুক
আহজি দিনেই হানানা ধাগিবের দুক।
আন্ধার মন ধাগিবেত্তেই দোকদোক্যে আঙারা
আহজিবার লঘে বারবার ঝাবানা
জেধক আহজানা সেধক হানানা।
সেজান, সেজানগরিহ তারে
আহজির ঝোকঝোক্যে আগুনে-
জালেদ, অনসুর  জালেদ তারে।
সয়সাগর পোতপোত্যে তারার অলর সারি
সেনে ঝামদিলো তে মনর দুঘে
আন্ধারর তারাসারা অলর তাগি।

হিয়া, তুমিধ ভেক্কুনে মিলি
থেরগেয়ো তারে আহজি আহজি।
তোমারধ নঅহয় হিচ্ছু
জেমেন এল এগই আঘে বে’ক হিচ্ছু।
তে হি ভাপ্পে হন দিন-
(এল হি তা মনত এধক চেদানা ?)
নিজোরে আন্ধার গরিহ তোমারে গরিভো আন্ধার।

গেলহ, গেলহ, দুবি গেলহ, তারা ইক্কো দুবি গেলহ,
আন্ধার সাগরত
গভিন রেদোত
বেধুজি আঘাজত।
মনান, মনান মর, তর হি পরানে মাঘে
ঘুম জেবার সে তারাভুও লঘে
সে আন্ধার সাগরত
সে গভিন রেদোত
সে বেধুজি আঘাজত।

তারকার আত্মহত্যা/সন্ধ্যাসংগীত

Photo credit: https://unsplash.com/

গিত আরম্ভ – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

চেরোহিত্য মেঘর হারা,
বোয়েরানে চুমি চুমি জায়-
থুমনেই আঘাচ্ছান
দি-আহত অঝার গরিহ
ভরেই তুলে মন আজায় আজায়।

ধুজিনেই দেবার হরত
চাক চাক মেঘর মোনত
আহওজর ঘর দুওঙ সুদোত
তত্তেই হবিদের ঘর মর।
পরঙ মুই সিধু জেক্কে জেম
লঘে মন্ত্র গরিনেই তরেয়ো নেজেম।
বোয়েরত উরিবো তর হাহদিয়েন রাঙা,
সিদি পরিবো চেরোপালা তর চুলোন হালা,
দি-চোঘো পাদা তর মেলহঙ-নমেলহঙ
রাঙা আহজিবো তর দেঘঙ-নদেঘঙ-
মন-গভিনর নরম সদক
সিদি পরিবো গালর দাবত।
মেলিনেই পিধিত চুলোর তামঝাঙে
হবে হারা সিধু জাঙালে লাঙেলে,
লাজুরি মেঘে জ্যেন হারা হয়
পোথ্যে বোয়েরর লঘে।
ফুদোঙ ফুদোঙ ফুলোর হুরি
নাগত নাক ঘজি তুলিম ফুদি,
বুঘোর ভিদিরে ত মুওন লোনেই
ঘুম নেজেম গিত সুনেই সুনেই।
গুরোপালসান মেক চাগাঘুন
এভাক দুমুরি লরালরি গরিহ
ঘিরিবাক্কি আমারে চেরোপালাত্তুন
চেই থেবাক আমারে আমক গরিহ।

মেঘত্তুন লামি লারে লারে
আয় হবিদে, মর ধাকঘাজি-
আন্ধারর গ্যেনদোল লারে সরেনেই
জেঝান রাঙায় পোথ্যে সদগে পিত্থিমি।

বোয়েরত্তুন লারে লারে লামি
আয় হবিদে, মর ধাকঘাজি-
অজানা তারুমোর গভিন বুঘোত্তুন
জেঝান ভাজি এঝে তুমবাচ
বোয়েরর ন’র পাঙি বে’ই।
মনর সিদেনর হোনাত্তুন
নুও বৌ সান লারে নিহগিলি আয়-
দরাঙ দরাঙ লাঙনি জেমেন
পরান বানিহ থিয়েই উধি
মুরগুজি আজার হায়োয় লাঙ্যের হুরে জেই।

নঅহলে গিরগিচ্যে হিয়েলোই
আয় হবিদে, মর ধাকঘাজি-
ঈন মরন জেমেন এঝে
সিরোপানিহ জেমেন ঝরে,
পঝিমর আন্ধার সাগরত
তারাভুও জেমেন গরিহ জায়,
লারে চিগোন আহজি
দিনান জেমেন জায়
রাঙা দোকদোক্যে
পজিমর চবাসালত।
হাত্তন্যে হাক্কন্য়ে জিঙহানি
ইক্কো মরা মরা চেরাক
থুম হধাগান ধুজোদে ধুজোদে
জেমেন আবাধা মরি জায়
সেজান, নঅহলে সেজান গরি আয়-
হবিদে, আহওজর পরানি মর
দি-বার বানাহ পরিবো নিজেচ,
দিয়েন বানাহ নিহগিলিবো হধা,
দি-আহত বুঘোত দিনেই
মুওন থোচ পোচপানার সমারে।

গান আরম্ভ/সন্ধ্যাসংগীত

Photo credit: https://unsplash.com/

সাজন্যে – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

 

ও সাজন্যে,
থুমনেই আগাঝর তলে গায়গায় বঝি,
হালা ঘন চুলানি হুলি,
চুবে চুবে লারে লারে নিজে নিজে,
পিত্থিমির মুওর হিত্যে রিনি চে’ই,
অজিরেন হি হধা হচ,
হি গিত গাচ।
সুনিথাঙ দিনপত্তি,
হনদিন ত হধানি
নপারিলুঙ বুঝি।
সুনি থাঙ পত্তিদিন,
হনদিন ত গিত্থুন
নপারিলুঙ সিগি।
ঘুমে চোক এঝন বদি,
পোত্যেসদক পারাপাঙ রাঙাল্লি।
পরানর গভিনত আর গভিনত
ত ঘজা লঘে ঘজা মিলেনেই
জাঙাল্যে তরবুও পরান
তর গিত গায় তরই সমারে।

ও সাজন্যে,
মুই ত আদাম্যে ত উদোন্যে
তুই-মুই এক হিয়ের লো ফুদো।
পরান বেরাচ্ছেত দিককাভুলো
ঘুরঙর জাঙালত্তুন জাঙালত।
সুনিনেই নিজো দেঝর গিত,
ভালুত্দুরোত্তুন হার উদো পে’ই
মনর বান দিলুঙ সারি।
হিজেনি হন পুরোনি হধা
উদুরেই উধে সে গিদোর তেগে তেগে।
সে তারাগুনো লঘে
জে’ন এলুঙ এক আদামত,
আহজিদুঙ হানিদুঙ তারাহ্ লঘে।
সিধু আরেক বার ফিরি জেদুঙ চা’ঙ
তোগেইয়ে পত বার বার আহরাঙ।
হধক পুরোনি হধা,
হধক আহজেয়ে গিত,
হধক নজিন্যে বনিজেচ,
লাজেই লাজেই মুচিমেই আহজি,
সুনোঙ নসুনোঙ আদরর দাগনি,
হানে হানে হধক হিরিমিরি,
ও সাজন্যে, তর আন্ধারত
মিলেই জেইয়ে অনসুরোত্তেই।
তর আন্ধারর দরজ্যেত
সাজুরি বেরান তারাহ অনসুর
জুগোত্থুন জুগোর অলর হিয়েত
ভাঙাজাঙা সময়র সান।
জেক্কে সে সরাপারত বঝি
মাধা লঙাং ত থেঙত্তলে
সিয়েনি ভেক্কানি এঝে দলে দলে
মনর চেরোহিত্যে বেরে’ই বেরান্নি,
অহলেব’ এক্কা দাগি
নঅহলে মুচিমেই আহজি
চোঘো মুজুঙে ঘুরি বেরান্নি।
দেঘাদে মিলেই জায়, মিলেই জায় দেঘাদে।

এচ্যে এচ্যোঙ সাজন্যে,
ত আন্ধারত বঝি
মর দি-চোক হাহদি
গিত গেবার মন-
চুবে চুবে সুনেবার
মনর হয়েক্কো গিত।
জুওত থায় আহজি জেয়ে গিত,
জুওত থায় আহজি জেয়ে আহজি,
জুওত থায় দুবি জেয়ে সবন।
এই সুওত বানেই দিচ
মর এ গিত্তুনোর
চবাসাল।
ও সাজন্যে, পোচপানার গিলেবে
লুগেই রাঘেচ তারারে-
ন’লে আহজিবেক অনেগে
চিতনেই থেরগানি চোঘে চবাসালান চে’ই।
সিরোপানিহ বানাহ জুরো জুরো ঝরি পরোক,
পিবির বোয়েরে ফেলোক বনিজেচ।
অলরান বঝি থোক
গালত আহত দিনেই গায় গায়,
অকথে অকথে তারা হয়েক্কো
পরিবাক ঝরি তারাহ উগুরে।

সন্ধ্যা/সন্ধ্যাসংগীত

Photo credit: https://unsplash.com/

সোনাবি লঘে লাঙেল দিঘোলি

 

সোনাবি, তর আর মর পত আহদানা
আহদত ধরা ধরি গরি
তর চোঘত রিনি চে’ই মুই মরে আহরেয়োঙ
ম বুঘোত গলি গলি মুমোসান লেবেদেই আঘচ হদ জুক ধরি-

এলঙ আমি হায়হুই আলিহদমত
মানিকগিরি-ধাবানা-ধরম্যা-মোগল্যা আমলত
জুমহাবা গেলে বেল দিভোরত ম ঈদে জেদে
চিগোন হুরুমমোত ভাত মোজা, তোন মোজা
হলাতথুর, ভাচচুরি তোন, চিগোন ইজে দিনেই হুধুগুনো
হায় বঝি হাহবেদে, ভাত হেহই উধিলে অলর তারুমো সেরে
ত হাহদি পেজ বোয়ের তলে হাহককন জিরেনা-

এলঙ আমি একলঘে সুকবিলাসত-রাজানগরত
আমাহলঘে এলাক সুকদেপ রায়, জানবকস খাঁ, হালিনদি রানি, ভুবন মোহন রায়
হদ বিঝুত ত-সমার, ম-সমার সঙসমারে ঘিলে হাহরা, নাদেঙ হাহরার জিদেজিত্যে
হধক থানমানাত-ভাত দ্যাত-বুর পারাত হায়হুই বঝি লুগেই লুগেই
চুবে চুবে থুমসারা ফুলুফালা ভাচ মাদানা
হ-দ-ক বার এসান্যেগরি তরে আর মরে
মরে আর তরে
“জদন আঘে না নেই-”
“আঘে আঘে-”
হয়োঙ ফুদে গাঙে গাঙে, মোনে মোনে-

জেকখে তরে হধা দি জেয়োঙ, ঝারত জাদে
সে সানতি তোগেবার তোলবোল্যে সময়ত
সুগুনো মুগরিহ বেললে ইজোরত বঝি বাচচেধে।
বেল দুবিদো, উদিধাক তারা
আবাধা এককেনা বোয়েরে (জে’ন বনিজেচ) লারেই দিদো হানজাবার হয়েকখান চুল
(ও…., তর সেই হানজাবার হয়েকখান পয়নাঙি চুল!)
পারাপেধে মুই আবাধা এলুঙ, ফুন দিলুঙ পিঝেততুন (আগ সান)-

হধক গাঙ-মোন বেরেলুঙ থেগা-তৈজোঙ, মনুগাঙ-দেরগাঙ, ধিকগাঙ
সোনাবি, ত সমারে, ত ধাকঘাজি-
এভ বল ন’পরে………..।

মাদি, নাদা-তিন, পতথম বঝর, মে-জুন, ২০০৩।

By MAADI Publication Board Posted in POEMS Tagged

জুমহাবা পালা

 

রাধামনঃ
ধন’ হেল্লে জেবঙ আমি জুমহাবা
উই সোচমোন তাগি ভালোক-দুরোত
দিওমুরো জার নাঙ, আবিদি তারুম
ভালোক-ভুলোনোত্তেই – ধনপাদা সারি-

ধনপুদিঃ
দিওমুরো-জুমহাবা ! আমারে ইরিনে ?
দুরোত-ভালুদ্দুরোত ! হমলে ফিরিবা ?
মনানত  নউধিবো সবায় আমারে,
ত সমারুন, ঘিলে হারা নাদেঙ হারার
এ খলাগুন। সমার আমা দিজনর
লাঙেলর সাবাগান চামিনি বনর।
তলে জার দিজনর মনর ধারাচ
নিরিবিলি একসঙে পাঘোর মিলিলো। Continue reading

মারবেল পাত্থরত নিলোজমন -হরেন্দ্র চাকমা

মনান ইক্কো রঙচোঙ্যা মার্ব্বেল পাত্থর যেন চিগোন গুরয় খারা হন
অকাবিল কুজি ইঞ্জেব তাকচানাৎ রোয় ন মিলানার আবিলেশ
ফিরি তাকচানার দোকদোক্যা আহ্ওজ। জাঙাল আধেই
গচ্যেই যায় কজমা নিলোজ মন।
পোচপানার ঈধি ফাল পাদেয়্যা পিংগুল নাদান পিত্থিমিৎ
নাটকঅ জিংকানী গোর অয় ভান গরি হ্াজানা মাদানাৎ কাবিল বারবো মন
তুঅদ-হাক্কনত্তেই রাজা ফগির অয়, ফগির রাজা অয়
আর দুঃগ চোগপানিয়ে তামজাং ঝড়ে, কার সুগ আহ্জিৎ
পিত্থিমীর রিবাং গিরগিরায়। লাভ কধা নয়, ভান গরানাৎ
যারে য্যানে সাঝে যেন্ মনঅ মুরোত্ কাদা রাগেই
ও-ল গরেবার আহ্ওজ; অচিন বিজাদি লরবো সিত্তুন
শত্তুর ইংরেজ, কালা মোন উদিজে পথ দেগানার কাবিল ভান্
কাজলঙঅ রিজার্ভও কাজলদ্যা অরিং চোগির।
আঙুল মাধাৎ দিগবন স্যান কি চাদে কম ?
নিজিরেত; মমতাজর মিধে হ্াজিৎ তাজমহল কেয়্যা ঝাগারায়
সাহাজাহান সলঙৎ বনিজেস্ ছাড়ে, জাগি উদে একঝাক মাত্তল।
মধ্যরেত, যে কবি তামজাঙঅ পারত বজি, মন আহ্ওজে
তাজমহলর মার্ব্বেল পাত্থর ফাদায়, তা আঝাত্ ফুল পরোক।
অক্তে অক্তে, নিলোজ মন মহাভারতর সাজন্যা দ্রৌপদী তগায়
যেন কাবুগর ধার পই তাগি থায় রেদ শিগেরীর বিলেই চোখ,
বেল মিদে সদগত্ লাংদা হিজল ঝারত ধল বগা উরি যান
রীনা মেসিনজারঅ নিগুচ্ আহ্দানাৎ স্বর্গর বেক দোলানি লই
নোনেইয়্যা নিতম্ব নাজি উদে, যেন সলং বদলেয়্যা বিষ সাপ লরেচরে।
তা লগে হ্াজার চোগ জ্বালা জুরোয় উমরঅ আহ্নজামৎ
নাফিসার মাত্তল আহ্জিৎ হ্াজার গোলাপ ফুদন
এ যুগৎ আমি এক গোধেল কজরা জারবো অচল আধুলি
কন আমলর ফুল বারেঙৎ আগি পড়ি।
ইরুগ যন্ত্রনা আ নিলোজ মনর ভালবাসা নয়,
নিঝিরেত পরবাসর সজাগঘুম, মাত্তল জুনির মিধে সদগে
কাজলঙর রিজার্ভৎ হ্াজার হ্াজার শিগেরীর চোখ
ঝিমিৎ ঝিমিৎ জ্বলি উদন যেন্ বোম্বের কুইন নেকলেজর আলোকসজ্জা।
গভা মন গভীন বনিজেচ্, এ পরান চাই সরান 
দগিনঅ বিষ বোয়েরত আমা আঝা সদর তোগায়
-ঝিমিদৎ নাজি উদন হ্াজার চোখ।
ইক্কু মনান পাগল কামানঅ গুলি; শত্তুর বুকচিরি
লো’র দোর্চ্যাৎ ডুবি থেদ চায়, রগনী কলজ্যা সিদেনদি
এ গুলিত তাজমহল ভাঙি যেব গলি গলি পড়িব –
রীনা মেসিনজারঅ সোনা কেয়্যা, ঝরি পড়িবাক
হ্াজার গোলাপ নাফিসার দোলনেই হ্াজানাৎ।
আরঅ ফিরি এব এ দিন
পরাক পরাক অই উদিব রাঙা বেলর মিদে সদগে
নিলোজ মন তজিম অব জাদর স্ববন।
ইজোরঅ মাধার ডালিম আর গয়াম বাগানৎ নাজি বেড়েবাক্
ঝাক ঝাক বুলবুল, সাহানাজ এ গাজত্তুন উগাজৎ
- যেন লাঙ মেয়্যা সদর তোগায় সদরঅ বুগৎ।
আর ফিরি বেরেব রীনা মেসিন্জার
করঙা কাপ্যে রেড রিবন ধল বুগৎ বানি
জুনপর ফুট্যা ধলকরা উদোনৎ।
নাফিসার মাত্তল আহ্জিৎ হ্াজার গোলাপ ফুদিবেক
তা সেরে তাজমহল জন্ম অব; জন্ম লব চাকমার
নুঅ বিজক রুবো পাদৎ সোনা অক্ষরে।
আরঅ নিলোজ মন তজিম অব
রঙচোঙ্যা মার্ব্বেল পাত্থর
হ্াজারে হ্াজার।

জাদর পরান আদামত

 

জাদর পরান আদামত,
তজিম চাঙমা আদাম,
তজিম চাঙমা জাত।

ও আমা আদামান, আমা পরানান
আমার আহ্ওজোর গেদি সাগিনান।

চেরোপালা ঘিরি আঘে তারে এহ্ল তারুমান,
হরত বঝেই রাঘেয়ে তারে প’ন সোরাগান,
ভুয়ে-জুমে ভরন-ভিরোন হন’-হিচ্ছু নেই পরা,
ধানে-চোলে তোন-পাদে বেঘর আঘে ঘর ভরা।

সঙ মধ্যে আদাম’ পরান আমা হিয়োঙান,
আঘে আর’ তা হুরে আমা ইসকুলান,
হিয়োঙত জেনেই বেন্যে-বেল্লে বুদ্ধরে পুজিয়োই,
ইসকুলোত জেনেই পোরভুওলগে লেঘা শিগোন্নোই।

বেঘেমিলি আমা আদামান তজিম বানেবঙ,
সেজান গরি আমা জাত্তো তজিম বানেবঙ।

মাদি

 

‘মাদি’ তোগায় আঘাচ জুরি
পানি ফুদোর টিপ,
‘মাদি’ বানায় দুনিয়ে বুঘোত
পরান দিবার বীজ।
‘মাদি’র তলে অঝার পানি
জুরো বানাহ্ জুরো,
‘মাদি’ তরে সালাম জানেই
চিগোন, গুরো, বুড়ো।

– নিপম চাকমা, ফেব্রুয়ারী, ২০১১, অরকুট, ইন্টারনেট ।